ইস! কৌশল’টা আগে জা’না থাকলে বাবা হয়’তো স্ট্রোক করে মা’রা যে’তেন না!

চীনের অধ্যাপকরা বলছেন যে কারো স্ট্রোক হ’চ্ছে যদি এমন দে’খেন তাহলে আপনাকে নিম্নলিখিত পদ্ধতি অবলম্বন ক’রতে হবে। যখন কেউ স্ট্রোকে আ’ক্রান্ত হয় তার মস্তি’ষ্ক কোষ ধীরে ধীরে প্র’সারিত হয়।মানুষের ফার্স্ট এইড এবং বিশ্রামের প্রয়োজন হয়।

যদি দেখেন স্ট্রোকে আক্রা’ন্ত ব্য’ক্তিকে সরানো যাবে না কারন ম’স্তিষ্কে র’ক্তক্ষরণ বি’স্ফোরিত হতে পারে, এটা ভাল হবে যদি আপনার বাড়ীতে পিচকারি সুই থাকে, অথবা সেলাই সুই থাকলেও চলবে , আপনি

কয়েক সেকেন্ডের জন্য আ’গুনের শিখার উপরে সুচটিকে গরম করে নেবেন যাতে করে জী’বাণুমু’ক্ত হয় এবং তারপর রো’গীর হাতের ১০ আঙ্গুলের ডগার নরম অংশে ছোট ক্ষ’ত ক’রতে এটি ব্যবহার করুন।এমনভাবে করুন যাতে প্রতিটি আঙুল থেকে র’ক্তপাত হয়, কোন অ’ভিজ্ঞতা বা পূর্ববর্তী জ্ঞানের প্রয়োজন হবে না ।

কেবলমাত্র নি’শ্চিন্ত করুন যে আঙ্গুল থেকে যথে’ষ্ট পরিমাণে র’ক্তপাত হচ্ছে কি না। এবার 10 আঙ্গুলের র’ক্তপাত চলাকালীন, কয়েক মিনিটের জন্য অপেক্ষা করুন দে’খবেন ধীরে ধীরে রো’গী সু’স্থ হয়ে উঠ’ছে।

যদি আ’ক্রান্ত ব্য’ক্তির মুখ বিকৃত হয় তাহলে তার কানে ম্যাসেজ করুন। এমনভাবে তার কান ম্যাসেজ করুন যাতে ম্যাসেজে’র ফলে তার কান লাল হয়ে যায় এবং এর অর্থ হচ্ছে কানে র’ক্ত পৌঁছেছে।

তারপর প্রতিটি কান থেকে দুইফোঁটা র’ক্ত পড়ার জন্য প্রতিটি কানের নরম অংশে সুচ ফুটান।কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন দে’খবেন মুখ আর বিকৃত হবে না।আরও অন্যান্য উ’পসর্গ দেখা যায়। য’তক্ষণ না রো’গী মোটামুটি স্বা’ভাবিক হচ্ছে অপেক্ষা করুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেই য’থাসম্ভব তাড়াতাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করান।

জীবন বাঁ’চাতে র’ক্তক্ষয় পদ্ধতি চীনে প্রথাগত ভাবে চিকিৎ’সার অংশ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আ’সছে। এবং এই পদ্ধতির ব্যবহারিক প্রয়োগ,100% কা’র্যকরী প্রমাণিত হয়েছে।

সুত্র :ইন্টারনেট