স্বামী দাঁত মাজেন না, তাই ডি’ভোর্স চাইলেন স্ত্রী’

স্বামী চূড়ান্ত অ’পরিচ্ছন্ন। স্নান করেন না, ব্রাশও করেন না। বারবার বলা সত্ত্বেও পরি’ষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকার কোনো চেষ্টাও করেন না। স্বামীর এই নোংরা স্বভাবের জন্য এবার বিবাহ বি’চ্ছেদের মা’মলা করলেন স্ত্রী’। তার দা’বি, বারবার বলা সত্ত্বেও স্বামীর স্বভাব শুধ’রোয়নি। আগামী দিনে তাই তার পক্ষে ওই ব্য’ক্তির সাথে থাকা সম্ভব নয়। বিহারের বৈশালীর এই ঘ’টনায় রীতিমতো অ’বাক নেটিজেনরা।

ওই মহিলার নাম সোনি দেবী। বয়স বছর কুড়ি। বিহারের বৈশালী জে’লার নয়াগ্রামে থাকেন স্বামীর সাথে। থাকেনই বটে, তাদের স’ম্পর্কে আর হৃদ্যতা নেই। হয়তো ভাবছেন, মনের মিল হচ্ছে না, বা অন্য কোনো স’মস্যা! কিন্তু, এর কোনোটাই নয়। সোনি ও তার স্বামী মণীশ রামের স’ম্পর্কের অবনতি হওয়ার একটাই কারণ, সেটা অ’পরিচ্ছন্নতা। মণীশ স্বভাবসিদ্ধ অ’পরিচ্ছন্ন। শীত-গ্রীষ্ম-বর্ষা কোনোকালেই স্নান ক’রতে পছন্দ করেন না। সকালে উঠে দাঁত মাজতেও বির’ক্তি তার। দীর্ঘদিন এটা চলতে থাকাই, সোনির পক্ষে আর তার সাথে থাকা সম্ভব হচ্ছিল না।

সোনির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে মণীশ রামের সাথে বিবাহ ব’ন্ধনে আব’দ্ধ হন তিনি। শুরু থেকেই বুঝতে পেরেছিলেন, স্বামী চূড়ান্ত অ’পরি’ষ্কার। তবে, তখন শাশুড়ির ভ’য়ে মাঝে মাঝে স্নান ক’রতেন। সকালে দাঁতও মাজতেন। কিন্তু, শাশুড়ি মা’রা যাওয়ার পর থেকেই প’রিস্থিতি সহ্যের সীমা অ’তিক্রম করে। টানা ৮-১০ দিন স্নান ক’রতেন না মণীশ। দাঁত মাজা একেবারেই ছেড়ে দিয়েছিলেন।

শেষমেষ বাধ্য হয়েই, বিবাহ বি’চ্ছেদের মা’মলা করেন সোনি দেবী। সোনি বলছেন, ও আমা’র জীবন দুর্বিষহ করে দিয়েছে। মা’মলা করা হয় মহিলা কমি’শনে। যদিও, মহিলা কমি’শন সোনিকে এখনই বিবাহ বি’চ্ছেদ না করার পরাম’র্শ দিয়েছে। তারা আরও দু’মাস দুজনকে একসাথে থাকার পরমা’র্শ দিয়েছে। এবং মণীশকেও নিয়মিত স্নান ও ব্রাশ করার পরাম’র্শ দেয়া হয়েছে।