করোনা মহামা’রিতে যা করছেন যৌ’নক’র্মীরা

করো’না ভা’ইরাসের কারণে নজিরবিহীন বি’পাকে প’ড়েছে যৌ*নক’র্মী রা। সচরাচর যৌ*নক’র্মী রা দিনে বহু খদ্দেরের সংস্প’র্শে যায়। কিন্তু করো’না ভা’ইরাসের তা’ণ্ডবের মধ্যে তারা নিজেদের ক’র্মকাণ্ড চালিয়ে গেলে আক্রা’ন্ত হওয়ার ঝুঁ’কি বহুগুণ বেশি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন' হাঁচি-কাশি দেওয়ার পর হাত সাবান দিয়ে পরি’ষ্কার রাখতে হবে। এমনকি নিজে’র হাত নাকে-মুখে ও চোখে দেওয়া যাবে না। অন্য মানুষের কাছ থেকে শা’রীরিকভাবে দূ’রত্ব বজায় রাখার কথা বলা হচ্ছে। এই দূ’রত্ব কেউ বলছেন তিনি ফুট' আবার কোনো বিশেষজ্ঞ বলছেন ছয় ফুটের কথা।

কিন্তু অন্যদের থেকে দূ’রত্ব বজায় রেখে নিজেদের পেশা চালিয়ে যাওয়া যৌ*নক’র্মী দের পক্ষে অ’ন্তত অসম্ভব। সে কারণে' বর্তমানে তারা খেয়ে পরে মাথা গোঁজার জায়গা করে নিতেই হিমশিম খাচ্ছে।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে এখন যৌ*নক’র্মী দের অপরাধী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে' ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পতিতাবৃত্তি শা’স্তিযোগ্য অপরাধ।

ইন্টারন্যঅশনাল কমিটি অন দ্য রাইটস অব সে’ক্স ওয়ার্কার্স ইন ইউরোপ (আইসিআরএসডাব্লিউই) জা’নিয়েছে' ইউরোপের দেশগুলোতে যৌ*নক’র্মী রা সবসময়ই অথনৈতিকভাবে টানাপ’ড়েনের মধ্যে থাকে। তাদের কাছে টাকা-পয়সা সেভাবে সঞ্চিত থাকে না। কোনো ধ’রনের বি’পদে পড়লে তারা তা থেকে উ’দ্ধার হতে হিমশিম খায়। এই ম’হামা’রিতে নিজে’রা টিকে থাকার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

ইউরোপের দেশগুলোতে যৌ*নক’র্মী দের বিভিন্ন ডেরায় অ’ভিযান' তাদেরকে আ’টক এবং শা’স্তির বিষয়ে আইসিআরএসডাব্লিউই জা’নিয়েছে' এসব না করে যৌ*নক’র্মী দের অর্থনৈতিক প্রণোদনা দরকার। এই সময়ে তাদের নি’রাপদ রাখতে চাইলে জ’রুরি ভিত্তিতে সহায়তা করা দরকার।

আইসিআরএসডাব্লিউই আরো দা’বি জা’নিয়েছে' যৌ*নক’র্মী দের মানবাধিকার যেন ক্ষুণ্ন না হয় সেটি সব দেশের সরকারকে বিবেচনায় রাখতে হবে। তাদের নি’রাপত্তা দিতে হবে এবং তাদের কাজে’র পরিবেশ নি’রাপদ করার ক্ষেত্রে সেভাবে নিয়ম চালু ক’রতে হবে। যৌ*নক’র্মী দের অপরাধীর তালিকাভুক্ত করা হলে তার বিরূপ প্র’ভাব পড়বে বলেও সত’র্ক করে দেওয়া হয়েছে।

সূত্র : হিউম্যান রাইটস ওয়াচ